একটি ভুল চিন্তা : আমরা ইবাদত করলে কি আল্লাহর লাভ?!

Businessman is drawing right and wrong concept with marker on transparent board with yellow background.

এক ভাইয়ের আববা খুব অসুস্থ। তাকে আইসিইউ-তে ভর্তি করা হয়েছে। অক্সিজেনের সাহায্যে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে হচ্ছে। তো তার আববাকে দেখতে গিয়ে তার সাথে কথা চলছিল যে, সুস্থতা আল্লাহ তাআলার অনেক বড় নিআমত। এ নিআমতের উপর বেশি বেশি শুকরিয়া আদায় করা দরকার। তখন সে এক পর্যায়ে বলে বসল, আমরা সুস্থ থাকলে তো আল্লাহরই লাভ; তখন আমরা আল্লাহর ইবাদত করতে পারব।

(আরো কোনো কোনো মানুষকে এজাতীয় বাক্য বলতে শুনেছি।) এটি একটি ভুল চিন্তা, যা ব্যক্তির অজ্ঞতার কারণেই মনে এসে থাকে। আমাদের ইবাদতের সাথে আল্লাহর লাভ ক্ষতির কী সম্পর্ক? আমরা কোনো নেক আমল করলে তার কল্যাণ ও সওয়াব আমরাই লাভ করব। আর আমাদের নাফরমানীর অকল্যাণ ও আপদ আমাদের উপরেই বর্তাবে। আমাদের ইবাদত করা না করা আল্লাহর রাজত্বে সামান্য হ্রাস-বৃদ্ধি ঘটাবে না। আল্লাহ আমাদের ইবাদতের মুখাপেক্ষী নন। হাদীসে কুদসীতে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন,‘‘…তোমাদের শুরু থেকে শেষ সকলেই যদি তোমাদের মধ্যে সবচেয়ে মুত্তাকী (পরহেযগার) ব্যক্তির মত হয়ে যায় তাহলে তা আমার রাজত্বে সামান্য বৃদ্ধিও ঘটাবে না। তেমনিভাবে তোমাদের শুরু থেকে শেষ সকলেই যদি তোমাদের মধ্যে সবচেয়ে পাপিষ্ঠ ব্যক্তির মত হয়ে যায় তাহলে তা আমার রাজত্বে সামান্য হ্রাস ঘটাবে না।…’’ (সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৫৭৭)

কিছু মরুবাসী মনে করছিল, ইসলাম গ্রহণ করে তারা (আল্লাহর উপর) আল্লাহর নবীর উপর অনুগ্রহ করে ফেলেছে। তখন আল্লাহ তাআলা তাদের উদ্দেশে বললেন, (তরজমা) ‘‘তারা ইসলাম গ্রহণ করে তোমাকে ধন্য করেছে মনে করে। আপনি বলুন, তোমাদের ইসলাম গ্রহণ আমাকে ধন্য করেছে মনে করো না; বরং আল্লাহই ঈমানের দিকে পরিচালিত করে তোমাদের ধন্য করেছেন, যদি তোমরা সত্যবাদী হও।’’ (সূরা হুজুরাত ৪৯: ১৭)

 সুতরাং আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক থাকব, যেন এজাতীয় কথা বা চিন্তা থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারি। আল্লাহই তাওফীক দাতা।