জেলেদের গ্রাম থেকে সিঙ্গাপুর রাষ্ট্র, কিন্তু কীভাবে?

৯১ বছর বয়সে মারা গেছেন সিঙ্গাপুর রাষ্ট্রটির প্রতিষ্ঠাতা লি কুয়ান ইউ। কিন্তু জীবদ্দশায় সিঙ্গাপুর বা এই বিশ্বের জন্য এমন কিছু করে গেছেন যার কারনে বিশ্ব ইতিহাসে সোনার অক্ষরে আজীবন লেখা থাকবে তাঁর নাম।

এখন যে জায়গায় সিঙ্গাপুর, সেখানে একসময় ছিলো জেলেদের বাস। ১২০ টি জেলে পরিবার বাস করতো এখানে। কিভাবে এমন একটি জায়গাকে সিঙ্গাপুরে রুপায়ন করেছিলেন লি কুয়ান? টাইম ম্যাগাজিনের সাবেক এশিয়া বিষয়ক সম্পাদক ডোনাল্ড মরিসন ওই সময়ের স্মৃতিচারণ করেছেন।

‘লি কুয়ানের সাথে আমার প্রথম দ্বন্দ্বটা হয় ১৯৮৬ সালের দিকে। আমি টাইমে তার সরকারের বিরোধী দলকে হেনস্তা করার একটি খবর প্রকাশ করি। খবরটির প্রতিবাদ জানিয়ে লি কুয়ানের দপ্তর থেকে বিস্তর এক প্রতিবাদপত্র পাঠানো হয়। আমি এটার পুরোটা না ছাপিয়ে সারাংশটা ছাপাতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তিনি চাইছিলেন পুরো প্রতিবাদ লিপিটাই ছাপতে। আমি অস্বীকার করলাম। আর এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে সিঙ্গাপুরে টাইমের ৯০ শতাংশ প্রকাশনা নিষিদ্ধ করেন লি কুয়ান। টাইমের বিরুদ্ধে সিঙ্গাপুরের লোকাল রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ আনা হয়।

৯ মাস অনেক কাঠখড় পোড়ানোর পর অবশেষে পুনরায় প্রকাশনার অনুমতি দেয়া হয়।

বছরের পর বছর সিঙ্গাপুরকে দেখার ফলে আমি জানি এ রাষ্ট্রের শুরু ও চলতি পথটা কি রকম। দেশটির সর্বত্র লি কুয়ানের প্রশংসা। দেশটিকে তিনি ঝাঁ চকচকে করে তৈরী করেছেন। এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলো যেখানে দুর্নীতিতে জর্জরিত, সেখানে আক্ষরিক অর্থেই সিঙ্গাপুরে কোনো দুর্নীতির লেশমাত্র ছিলো না।

১৯৬৫ সালে প্রতিবেশি মালয়েশিয়া থেকে আলাদা হওয়ার পর থেকেই মূলত এ দ্বীপ রাষ্ট্রটিকে একটু একটু করে নিজ হাতে প্রতিষ্ঠা করেন লি কুয়ান। ৯ আগস্ট ১৯৬৫, লি কুয়ান ইউ জনগণের পক্ষ থেকে রিপাবলিক অব সিঙ্গাপুরের সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। স্বাধীনতা ঘোষণার সময়েই ঘোষণা করা হয় সিঙ্গাপুর রাষ্ট্রের মূল নীতি হবে— স্বাধীনতা, ন্যায়বিচার, জনকল্যাণ, সমৃদ্ধি ও সাম্য।’

১৯৬৫ সালে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে উন্মেষের আগে ও পরে বেশি কিছু কঠিক সময় পাড়ি দিতে হয়েছে। শুধু ১৯৬১ সালেই এ দেশে ১১৬টি ধর্মঘট সংঘটিত হয়েছে। ১৯৬০ থেকে ’৬৭ সালের মধ্যে নেতাদেরকে মোট ৩৮৯ ধরনের বিরোধ সামাল দিতে হয়েছে। রাজনৈতিক নেতৃত্বের দূরদর্শী পরিকল্পনা এবং জনপ্রশাসনের সংস্কারসহ নানামুখী ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করার ফলে অবস্থার অমূল পবির্তন সাধিত হয়েছে। ১৯৭৮ সালের পর থেকে এ দেশে আর কোনো ধর্মঘট হয়নি।

স্বাধীনতার সময় এখানকার মাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ৫১১ মার্কিন ডলার। এখন ২০১৩’র হিসাব অনুযায়ী মাথাপিছু আয় (পিপিপি) ৬১, ৫৬৭ মার্কিন ডলার। ২০১০ সালে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ছিল ১৪.৫ শতাংশ। জীবনযাত্রার গুণগত মান বিবেচনায় এ দেশের অবস্থান এখন এশিয়ায় প্রথম এবং বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে ১১তম। আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে বিশ্বে এ দেশের অবস্থান যথাক্রমে ১৫ এবং ১৪তম স্থানে। একই সময়কালে এদের ভাণ্ডারে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ যা ছিল, তা বিশ্বের নবম সর্বোচ্চ রিজার্ভ হিসেবে বিবেচিত হয়েছিল। অন্যদিকে এ দেশের বৈদেশিক ঋণের অঙ্ক শূন্য।

পরিকল্পিত উন্নয়নের জোয়ারে জীবনযাপনে এসেছে অভাবিত পরিবর্তন, সে সঙ্গে পরিবর্তিত হয়েছে মনোজগত। দেশটিতে শিক্ষিতের হার ৯৬ শতাংশ, মানুষের গড় আয়ু ৮০.৬ বছর, আবাসন সুবিধাপ্রাপ্ত নাগরিক ৯০.১ শতাংশ এবং প্রতি ১০০০ জনে ১০৭ জন ব্যক্তিগত গাড়ির মালিক। আদিতে মাছ ধরা ছিল একমাত্র পেশা। অভিবাসীদের কাজ সীমাবদ্ধ ছিল শ্রমঘন সেক্টরে। কৃষিকাজ তেমন একটা হতো না; এখন তো একেবারেই নেই। এক কেজি চাল, এক লিটার দুধ কিংবা একটি ফল কোথাও উত্পাদন করা হয় না। শুধু সীমিত পরিসরে মাছ-মুরগি উত্পাদন করা হয়।