ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে আমদানীকৃত পশু দিয়ে কুরবানী করলে কুরবানী হবে না?

প্রশ্নঃ

আস্সালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ,
ভারত সিমান্ত দিয়ে যে সব কোরবানী পশু টেক্স ফাঁকি দিয়ে অবৈধ ভাবে বাংলাদেশের বাজারে প্রবেশ করে তা দিয়ে কোরবানী বৈধ হবে কিনা জানিয়ে বাধিত করবেন।

যাজাকুমুল্লাহু আহসানাল যাজা।

উত্তর

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

بسم الله الرحمن الرحيم

সরকারী ন্যায্য টেক্স ফাঁকি দেয়া ঠিক নয়। তবে এর মাধ্যমে কুরবানীর যে পশু আসে, সেসব ক্রয় করে কুরবানী করাতে কোন সমস্যা নেই। কুরবানী হয়ে যাবে।

ট্যাক্স ফাঁকি দেয়ায় আমদানীকারী ব্যক্তি অন্যায় কাজ করলেও, ক্রেতার কুরবানীতে কোন প্রভাব পড় না। হ্যাঁ, যদি পশুটি চুরি করে আনা হয়, আর চুরি করে আনার বিষয়টি নিশ্চিতভাবে জানা যায়, তাহলে চুরিকৃত পশু দ্বারা কুরবানী করলে কুরবানী শুদ্ধ হবে না।

না জেনে কুরবানী করলে কুরবানী শুদ্ধ হয়ে যাবে।

ولا ينبغي للسلطان أن يسعر على الناس” لقوله عليه الصلاة والسلام: “لا تسعروا فإن الله هو المسعر القابض الباسط الرازق” ولأن الثمن حق العاقد فإليه تقديره فلا ينبغي للإمام أن يتعرض لحقه إلا إذا تعلق به دفع ضرر العامة (كتاب الكراهية، فصل فى البيع-4/472، وكذا فى البدائع الصنائع-5/129)

كل من يسكن دولة فانه يلتزم قولا أو عملا بأنه يتبع قوانينها وحينئذ يجب عليه اتباع أحكامها الخ (بحوث فى قضايا فقهية معاصرة-166)


عن أبي هريرة عن النبي صلى الله عليه و سلم أنه قال : من اشترى سرقة وهو يعلم أنها سرقة فقد اشرك في عارها واثمها ( سنن البيهقى الكبرى-كتاب البيوع، باب كراهية مبايعة من أكثر ماله من الربا أو ثمن المحرم،

অনুবাদ-আবু হুরায়রা রা: থেকে বর্ণিত যে, নবীজি সা: বলেছেন যে, যে ব্যক্তি কোন চুরির বস্তু চুরির মাল জেনেও ক্রয় করে তবে সেও সেই অপরাধে এবং গোনাহে শরীক হবে।(মুসনাদে ইসহাক বিন রাহুয়া, হাদীস নং-৪১২, শুয়াবুল ঈমান লিলবায়হাকী, হাদীস নং-৫১১২, মুস্তাদরাক আলাস সাহীহাইন, হাদীস নং-২২৫৩, সুনানুল কুবরা লিলবায়হাকী, হাদীস নং-১০৮২৬, মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-২২০৬০)

والله اعلم بالصواب

Leave a Reply

Your email address will not be published.