রাখাইনে ১৫ মসজিদ ধ্বংসের বিপরীতে মিয়ানমারে শত শত মন্দির ধ্বংস!

শক্তিশালী ভূমিকম্পে মিয়ানমারে একাধিক মন্দির ধসে পড়েছে। রিখটার স্কেলে ৬ দশমিক ৮ মাত্রার ভূকম্পন অনুভূত হয় দেশটিতে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। বুধবার মিয়ানমারের স্থানীয় সময় বিকেল ৫ টার দিকে ওই কম্পন অনুভূত হয়েছে। বাংলাদেশ, ভারত ও মিয়ানমার ছাড়াও চীন, লাওস এবং থাইল্যান্ডেও ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপসংস্থা ইউএসজিএস বলছে, রিখটার স্কেলে ৬ দশমিক ৮ মাত্রার ওই ভূমিকম্প মিয়ানমারের চক শহরের ২৫ কিলোমিটার পশ্চিমে ৮৪ দশমিক ১ কিলোমিটার (৫২ মাইল) গভীরে উৎপত্তি হয়েছে।

চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিসিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের মান্দালয়, নাইপিদো ও ইয়াঙ্গুনে কম্পন অনুভূত হয়েছে। তবে দেশটির বিগান শহরে একাধিক মন্দির ধসে পড়েছে।

এর আগে মিয়ানমারের সরকার মুসলিম অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যের সব অবৈধ স্থাপনা ভেঙে ফেলার পরিকল্পনা করেছে। এসব স্থাপনার মধ্যে রয়েছে ২৫ হাজার বাড়ি, ৬০০ দোকান, ১৫টি মসজিদ এবং ৩০টিরও বেশি স্কুল। সরকারের এ ঘোষণার কারণেই ৯ অক্টোবরের রাখাইনে ওই হামলা হয়েছে বলে মনে করেন। কারন এ হামলায় বহু স্থাপনা তারা ধ্বংস করেছিলো। এ পরিপ্রেক্ষিতে অনেক রাখাইন নেতা মনে করছেন, মুসলিমদের মসিজিদ ভাঙার বিপরীতে উপরওয়ালাই প্রতিশোধ নিয়েছেন। ভূমিকম্প একটি উসিলা মাত্র।

ভারতের কলকাতা, আসাম, বিহার ও ঝাড়খণ্ডেও কম্পন অনুভূত হয়েছে। ইউএসজিএস বলছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ৪ কোটি ১০ লাখ মানুষ বুধবারের এই কম্পনে আক্রান্ত হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে বলছে, কলকাতায় ১০ সেকেন্ড স্থায়ী কম্পনের সময় অফিস ও স্কুল-কলেজ থেকে কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আসেন।