সারা জাহানের বাদশা; ঘরে নেই জামা কেনার পয়সা

ইসলামের অবিস্মরণীয় খলিফা হযরত উমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ.। সততা, নিষ্ঠা, ন্যায়বিচার এবং খোদাভীরুতাসহ সকল মানবীয় গুণে মহিমান্বিত ছিলেন যিনি। তাঁকে বলা হয় চার খলিফার সুযোগ্য উত্তরসূরি।

একবার হয়েছে কী, মুসলমানদের সবচেয়ে বড় আনন্দের উপলক্ষ পবিত্র ঈদের দিনে তাঁর মেয়ে কাঁদতে কাঁদতে তাঁর কাছে ছুটে এল। ‘কাঁদছ কেন মা’ বলে পিতার মমতা নিয়ে যখন মেয়ের মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলেন; অমনি অভিমানী কন্ঠে ছোট্ট মেয়ে বলে ওঠে, ‘আজ ঈদের দিনে সবাই নতুন জামা-কাপড় পরেছে। অথচ আমি বাদশার মেয়ে হয়েও পুরোনো জামাতেই ঈদ করছি!’

মেয়ের এহেন অনুযোগ বাদশাহকে খুব মর্মাহত করে তুলে। ছুটে যান রাষ্ট্রের কোষাধ্যক্ষের বাড়িতে। গিয়ে তাঁর কাছে আরজি জানালেন, ‘আমাকে কি একমাসের অগ্রিম বেতন দেওয়া যাবে? দিলে খুব ভাল হত। মেয়েটা আমার…!’ যে হুকুমতের কীর্তিমান খলিফা মহামান্য ইবনে আব্দুল আজিজ, তাঁর কোষাধ্যক্ষ তো তাঁর মতনই হবে, নাকি? তাই সামান্যতম নতজানু না হয়ে খাজাচি বলে দিলেন, ‘বাদশাহ নামদার, একমাসের অগ্রিম বেতন দিতে তো আমার কোন সমস্যা নেই। তবে এর আগে আপনাকে একটি ছোট্ট শর্ত পূরণ করতে হবে!’

‘কী শর্ত, বলো’- বিনয় ঝরে পড়ে বাদশাহ’র কন্ঠে। বলিষ্ঠ সুরে তখন কোষাধ্যক্ষ তাঁরই শ্রদ্ধাভাজন সম্রাটকে বলেন, ‘যে সময়গুলোর অগ্রিম মজুরি আপনি চাইছেন; সে পর্যন্ত আপনি বেঁচে থাকবেন- আমাকে তেমন নিশ্চয়তা দিতে পারলে আমি এখুনি আপনাকে চাহিদামত মজুরি দিয়ে দিচ্ছি।’

কথা শুনে হতবুদ্ধি হয়ে গেলেন বাদশাহ। রিক্ত মনে ফিরে এলেন ঘরে। এদিকে প্রিয় সন্তানেরা তাঁর অপেক্ষায় অধীর হয়ে আছে। কখন বাবা তাদের জন্য নতুন জামা-কাপড় নিয়ে আসবে- এই আকাঙ্ক্ষায় তর সইছিলনা যেন তাদের! অথচ পিতার বিবর্ণ মুখ দেখে তারা কোন আশার আলো দেখতে পেল না।

কাঁচুমাচু স্বরে একজন জিজ্ঞেস করল, ‘কী হয়েছে বাবা?’ প্রশ্নের আবহে উমরের কলিজেটা ছিঁড়ে যায় যেন! মুসলিম বিশ্বের অধিপতি, মহামান্য বাদশাহ ছলছল চোখে বললেন, ‘মা রে, তোমরা কি একটু ধৈর্য ধরতে পারবে? তাহলে দেখো, আমরা সবাই একসাথে জান্নাতে প্রবেশ করব। আর যদি এই সামান্য অভাব মানিয়ে নিতে তোমাদের কষ্ট হয়, তাহলে হয়ত তোমরা তোমাদের পিতাকে জাহান্নামের আগুনে জ্বলতে দেখবে!’

একথায় চমকে উঠে প্রিয় সন্তানেরা। সমস্বরে বলে ওঠে, ‘না বাবা, আমাদের কোন কাপড়চোপড়-উপঢৌকনের প্রয়োজন নেই। আমরা আল্লাহ’র উপর ভরসা করে ধৈর্য ধারণ করব’।

হুম… এই ছিলেন উমর ইবনে আব্দুল আজিজ। আমাদের গর্বের ধন। ইসলামের সুপরিচিত পঞ্চম খলিফা। তিনি ছিলেন ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা উমর আল-ফারুক এর দৌহিত্র। তাঁর ইনসাফ ও নিরপেক্ষতা আজো কিংবদন্তী হয়ে আছে প্রতিটি সত্যপিয়াসী মানব-হৃদয়ে। এমনই ছিল তাঁর শাসনকাল যে, বলা হয়; বাঘেরা ভেড়ার পালকে সাথে নিয়ে তাঁর রাজত্বে বিবাদহীন চড়ে বেড়াত। কথায় বলে না, ‘যেমন গাছ তেমন ফল!’ ঠিক যেমন ছিল শাসন, তেমনি এর প্রতি অনুপম আনুগত্য।

আহা, বর্তমানের অশান্ত ধরা পৃষ্ঠে আমরা যদি আরো একজন উমর ইবনে আব্দুল আজিজ পেয়ে যেতাম!

লেখক: শিক্ষার্থী, কাতার